বিজেপি’র লালবাজার অভিযানে ড্রোন-কাঁদানে গ্যাস-জলকামান-লাঠি ! অবরুদ্ধ কলকাতা

 

মদনমোহন সামন্ত,১২ জুন,কলকাতা : সন্দেশখালি কাণ্ডের প্রতিবাদে বিজেপি কর্মীদের খুনিদের গ্রেফতারের ও সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে এবং পশ্চিমবঙ্গে আইন শৃংখলার অবনতি ও মমতা ব্যানার্জির নেতৃত্বে তৃণমূলের রক্তের রাজনীতির বিরুদ্ধে ভারতীয় জনতা পার্টি বুধবার লালবাজার অভিযান-এর ডাক দেয়। তাদের লক্ষ্য ছিল সুবোধ মল্লিক স্কোয়ার-এ জামায়েত করে সেখান থেকে মিছিল সহকারে লালবাজারে স্মারকলিপি জমা দিতে যাওয়ার। সুবোধ মল্লিক স্কোয়ারে জমায়েত সম্পূর্ণ হলে মিছিল সহকারে ভারতীয় জনতা পার্টির শীর্ষ স্থানীয় নেতৃত্ব এবং সদ্য সমাপ্ত সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে জয়ী রাজ্যের আঠারো জন বিজেপি সাংসদরা সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ, বিপিন বিহারী গাঙ্গুলী স্ট্রিট হয়ে লালবাজারের দিকে এগোতে থাকেন। অন্যদিকে সকাল থেকেই পুলিশ যথেষ্ট প্রস্তুতি নিয়ে বিশাল আয়োজন করে রেখেছিল ভারতীয় জনতা পার্টির কর্মী-সমর্থকদের অভ্যর্থনা করার জন্য।

 

ক্সদুটি জলকামান, কাঁদানে গ্যাস, লাঠি সহ তিনটি ব্যারিকেড করে ত্রিস্তরীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা রেখেছিল। মিছিল ফিয়ার্স লেন-এর সামনে আসতেই পুলিশ মিছিলের গতিরোধ করে। মিছিলকারীদের সঙ্গে পুলিশের ধস্তাধস্তি হয়। মিছিলকারীরা প্রথম ব্যারিকেড ভেঙে দ্বিতীয় ব্যারিকেডের দিকে এগোতেই তাদের দিকে জলকামান থেকে জল ছোঁড়া শুরু হয়। তাতেই খানিক ছত্রভঙ্গ হয়ে যায় মিছিলকারীরা। তার পরপরই একের পর এক কাঁদানে গ্যাসের শেল ছোঁড়া হয় লালবাজারের দিক থেকে। মিছিলকারীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে বিপিন বিহারী গাঙ্গুলী স্ট্রিট এবং সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউয়ের সংযোগস্থলের দিকে পিঠটান দেন। এই সময়ে সায়ন্তন বসু সহ অনেক মহিলা কর্মী-সমর্থক আহত হন। সেই সুযোগে বিশাল পুলিশবাহিনী তাদের পিছু ধাওয়া করে সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউয়ের কাছাকাছি এসে লাঠিচার্জ শুরু করে। ইতিমধ্যে কৈলাস বিজয়বর্গীয় সহ অন্যান্য শীর্ষ নেতৃত্ব সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউয়ের ওপরেই কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে অবস্থানে বসে যান। সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ, বিপিন বিহারী গাঙ্গুলী স্ট্রিট, ফিয়ার্স লেন, ধর্মতলা সহ মধ্য কলকাতার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে যানবাহন স্তব্ধ হয়ে যায়। দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়। আতঙ্কিত সাধারণ মানুষজন দিগ্বিদিক জ্ঞানশূন্য হয়ে ছোটাছুটি শুরু করেন। এই সংবাদ পাঠানো পর্যন্ত সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউতে অবস্থান চলছে। পুলিশের শীর্ষ কর্তারা ভারতীয় জনতা পার্টির শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন। ভারতীয় জনতা পার্টির শীর্ষ নেতৃত্ব লালবাজারে গিয়ে তাদের স্মারকলিপি দেওয়ার ব্যাপারে এখনও অনড় রয়েছেন।

146total visits,2visits today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *