শতাব্দী’র ‘বুম্বা’কেও আমন্ত্রণ সল্টলেকের ইডি দফতরে, রোজভ্যালি কাণ্ডের সূত্রে

 

 

মদনমোহন সামন্ত, ৯ই জুলাই, কলকাতা :
“তাপস-শতাব্দী-প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণা কী করেছে? ওরা সিনেমা করে। এটা ওদের পেশা। টলিউড থেকে বলিউড ও হলিউডে ওদের যোগাযোগ রয়েছে।” রোজভ্যালি কাণ্ডে সরগরম অবস্থায় এই শংসাপত্র এসেছিল নোটবন্দির সময়ে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের সামনের অবস্থান মঞ্চে খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখ থেকে। অথচ সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশিত হলে যখন দ্বিতীয়বার কেন্দ্রীয় সরকারে ভারতীয় জনতা পার্টি ক্ষমতাসীন হল তার পর থেকেই দুই কেন্দ্রীয় সংস্থা সিবিআই এবং ইডি’র তৎপরতা বহুগুণ বেড়ে গিয়েছে। যে তৎপরতা অবশ্যই রাজ্যের বর্তমান শাসকদলের গাত্রদাহের কারণ হয়ে উঠেছে। বহুবিধ উপায়ে তৎপরতা প্রশমণের চেষ্টা করলেও আপাতদৃষ্টিতে উপর উপর দেখা যাচ্ছে যেন মাত্রা বৃদ্ধি করা হচ্ছে। বাস্তবে যদিও কাজ চলেছে শম্বুকগতিতে। তা সত্ত্বেও লক্ষ্য করা যাচ্ছে ১২ জুলাই-এর পর এবার ১৯ জুলাই-এর জন্য ইডি’র নড়নচড়ন। এক সপ্তাহের মাথায় টলিউডের পরপর দুই জনপ্রিয় অভিনেত্রী এবং অভিনেতাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সের এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট-এর আধিকারিকরা তাদের অফিসে তারকাদের হাজিরা দেওয়ার জন্য । ১২ জুলাই বীরভূমের দু’বারের তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ শতাব্দী রায়ের পর এবার টলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা ‘বুম্বা’ প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়কে তলব করেছে ইডি ৷ তাকে ১৯ জুলাই দুপুর বারোটায় পৌঁছানোর কথা জানানো হয়েছে। খবরে প্রকাশ, রোজভ্যালি কাণ্ডের তদন্তের প্রয়োজনে রোজভ্যালি প্রোডাকশনের ব্যানারে তৈরি ‘মনের মানুষ’ ও ‘হ্যাংওভার’ ছবির অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়কে তলব করা হয়েছে ৷ রোজভ্যালি কর্তা গৌতম কুন্ডুর সঙ্গে তাঁর যোগাযোগ ছিল কিনা বা ওই সংস্থার সঙ্গে তিনি কোনও রকম আর্থিক লেনদেন করেছিলেন কিনা সে সম্বন্ধেও তাঁর কাছে জানতে চাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। প্রসঙ্গত, টলিউডের প্রথম শ্রেণীর এক নায়িকা রোজভ্যালি কর্তা গৌতম কুন্ডু’র সঙ্গে আর্থিক লেনদেনে জড়িত। এমনকি তাঁর সাহায্যেই ওই নায়িকা বহুবার বিদেশভ্রমণ করেছেন এমন তথ্য ইডি’র কাছে প্রমান সহ রয়েছে। সেই তথ্যগুলির পুষ্টিসাধন করার জন্য ‘বুম্বা’কে জেরা করা প্রয়োজন বলে মনে করেছেন ইডি’র আধিকারিকরা। শুধু তাই নয়, প্রথম সারির ওই নায়িকা এবং বেশ কয়েকজন প্রযোজকও জড়িয়ে গিয়েছেন রোজভ্যালি সংক্রান্ত কারনামায়। এমনকি ঘটনাক্রমে এক সময় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও টলিউডের পাশে দাঁড়িয়ে সমর্থন জানিয়ে বলেছিলেন, “প্রসেনজিৎ ঋতুপর্ণার মত অভিনেতারা পেশাগত কারণে অনেক সংস্থার কাজ করেন। এতে অন্যায় কোথায়?”

50total visits,1visits today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *