একদিনে রেকর্ড করোনা আক্রান্ত বাংলায়, মৃত ৩৫

প্রতীকী ছবি।

শুক্লা রায়চৌধুরী, কলকাতা: করোনা আক্রান্তের সব রেকর্ড ছাপিয়ে গেল আজ। একদিনে করোনা আক্রান্তের সংখ্যার রেকর্ড দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে। বাংলায় করোনার প্রকোপ বেড়েই চলেছে। গত কয়েকদিন ধরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১০০০ ছাড়িয়ে যাচ্ছে। এবার সেই রেকর্ডকেও ভেঙে দিল আজকের পরিসংখ্যান। ২ হাজারের গন্ডি পেরোলো বাংলা। কিছুদিন আগে এই সংখ্যার কিছুটা হ্রাস হয়েছিল। তবে আবার বাড়তে চলেছে এই সংখ্যা। গত তিনদিনে প্রায় আট হাজার মানুষ করোনার কবলে পড়লেন।

এদিন নতুন করে ২,২৮২ জনের শরীরে মিলেছে করোনা ভাইরাস। আশঙ্কায় মেঘ থেকে যাচ্ছে রাজ্যবাসীর মাথার ওপর। দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে আতঙ্ক। এই নিয়ে সুপ্রিম নোটিশও পেয়েছে রাজ্য। নতুন করে মৃত্যু হয়েছে ৩৫ জনের৷ তবে নতুন করে ছাড়া পেয়েছেন ১,৫৩৫ জন৷

২০ জুলাই, সোমবার স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিনে, এখনও পর্যন্ত বাংলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৪৪,৭৬৯। যার মধ্যে মারা গেছেন ১,১৪৭ জন। তবে এখনও পর্যন্ত ২৬,৪১৮ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। রাজ্যে ৫৯.০১ শতাংশ হারে রোগী সুস্থ হচ্ছেন।

রবিবার থেকে সোমবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত ১৩,০৮১ টি টেস্ট হয়েছে৷ ফলে এই পর্যন্ত মোট টেস্ট হয়েছে ৭ লক্ষ ১৬ হাজার ৩৬৫ জনের৷ প্রতি মিলিয়নে ৭,৯৬০ জন৷ যা শতাংশের হিসেবে ৬.২৫ শতাংশ৷ বর্তমানে রাজ্যে সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে ৫৪টি পরীক্ষাগারে করোনা পরীক্ষা হচ্ছে। বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে ১৭,২০৪ জনের৷ রাজ্যের মোট ৮১ টি কোভিড হাসপাতলে ১১,২৩৯ টি বেড রয়েছে আইসিইউ বেড আছে ৯৪৮টি। ভেন্টিলেটর রয়েছে ৩৯৫টি।

অন্যদিকে, এখনও পর্যন্ত বাংলায় ৭ লক্ষের বেশি করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে বলে জানায় স্বাস্থ্য দফতর। রাজ্যের তরফে প্রতিদিন ১০ হাজার করোনা পরীক্ষা করার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে। তবে সেই লক্ষ্যমাত্রায় ব্যাঘাত ঘটিয়েছে আমফান। তারপরও প্রতিদিনের হিসেবে ১০ হাজার পরীক্ষা করিয়ে আসছে রাজ্য। তারই প্রতিফলন এই ৬ লক্ষের মাইলস্টোন।

প্রসঙ্গত গত বেশ কয়েকদিন ধরে রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা নিয়ে চিন্তা বাড়ছে। লাফিয়ে লাফিয়ে করোনার পজিটিভ হচ্ছে বাংলায় সেই নিয়ে উদ্বিগ্ন মুখ্যমন্ত্রী বুধবার বলেন, “আগামী কয়দিন আক্রান্তের সংখ্যা বাড়বে, কারণ পরীক্ষা বেশি হচ্ছে রাজ্যে। আগামী দুমাস আক্রান্তের সংখ্যা শীর্ষে পৌঁছাবে।” পাশাপাশি রাজ্যের কয়েকটা জেলায় সম্পূর্ণ লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।