রামচন্দ্র ভারতীয় নয়, নেপালী ছিলেন : কেপি ওলি

নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি।

খবর এইসময়, নিউজ ডেস্কঃ  সীমান্ত নিয়ে সমস্যা ছিলই। এবার ভারতের সঙ্গে নয়া বিষয় নিয়ে বিরোধ শুরু হল নেপালের। যা সীমান্ত বিবাদের থেকেও আরও ভয়াবহ। ভগবান শ্রীরাম নাকি ভারতীয় ছিলেন না। তিনি আসলে ছিলেন নেপালী। সোমবার এমনই দাবি করেছেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি।

বালুয়াতারে নিজের বাসভবনে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দেওয়ার সময় কেপি শর্মা অলি ভারতকে সাংস্কৃতিক নিপীড়ন ও আগ্রাসনের জন্য অভিযুক্ত করেন এবং বলেন যে বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে নেপালের অবদানের অবমূল্যায়ন করা হয়েছে।

এদিন নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি বলেছেন, “রাম ভারতীয় ছিলেন না, তিনি নেপালী ছিলেন। বিষয়টি অঘষিতই রয়ে গিয়েছে। আমরা সাংস্কৃতিকভাবে নিপীড়নের শিকার হয়ে আসছি।” একই সঙ্গে তিনি আরও বলেছেন, “আমরা এখনও মনে প্রাণে বিশ্বাস করি যে যুবরাজ রামর হাতে আমরা উপহার হিসেবে সীতাকে তুলে দিয়েছিলাম।”

তবে নেপালের রামের জন্মও সেই অযোধ্যাতেই হয়েছিল বলে দাবি করেছেন ওই দেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি। তিনি বলেছেন, “আমরা অযোধ্যার রামের হাতেই সীতাকে তুলে দিয়েছিলাম। সেই অযোধ্যা ভারতে অবস্থিত নয়।” নেপালের বীরগঞ্জ এলাকার পশ্চিমে অবস্থিত একটি গ্রামের নাম অযোধ্যা।(নেপালের একটি জেলা যা রাজধানী কাঠমান্ডু থেকে ১৩৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত), সেই অযোধ্যার রাজা ছিলেন শ্রীরাম। এমনই দাবি করেছেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী। তাঁর কথায়, “বীরগঞ্জের পশ্চিমে অযোধ্যা বহু পুরনো। নতুন করে তা তৈরি করা হয়নি।”

গত মাসে নেপাল সংসদ এই জমিগুলির দাবি জানাতে দেশের মানচিত্র আপডেট করার জন্য একটি সাংবিধানিক সংশোধনী পাস করার জন্য সর্বসম্মতভাবে ভোট দিয়েছে। কয়েক দিন পরেই জাতীয় সংসদ বিলটি সর্বসম্মতিক্রমে পাসও করে।

এই এলাকাগুলি চিনের সঙ্গে ভারতীয় সীমান্তে অত্যন্ত কৌশলগত অঞ্চল এবং ১৯৬২ সালের যুদ্ধের পর থেকে এই এলাকাগুলি পাহারা দিচ্ছে ভারত।