Shoot out: আবারও গুলিবিদ্ধ হয়ে যুবকের মৃত্যু জগদ্দলে ! এলাকায়  বিশাল পুলিশ বাহিনী

 

খবরএইসময় ডেস্ক :   রাজ্যে একের পর গুলি চলার ঘটনায় একাধিকবার পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিরোধী শিবির। এরই মধ্যে ফের শুক্রবার সন্ধে সাতটা নাগাদ জগদ্দলে গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু হল এক যুবকের। মৃত যুবকের নাম রমজান আলি ওরফে পৌউয়া। ঘটনাটি ঘটেছে জগদ্দলের রুস্তম গুমটি এলাকায়। ঘটনার জেরে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়েছে। ঘটনাস্থলে জগদ্দল থানার বিশাল পুলিশবাহিনী।

স্থানীয় সুত্রে জানা গিয়েছে, বাইকে চেপে এসেছিল দুষ্কৃতীরা। খুব কাছ থেকে রমজান আলিকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় তারা। গুলি লাগার সঙ্গে সঙ্গে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে ওই যুবক। তড়িঘড়ি তাঁকে উদ্ধার করে নিকটবর্তী ভাটপাড়া স্টেট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।  তবে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথেই রমজানের মৃত্যু হয় বলে জানা গিয়েছে। হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক রমজানকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

জানা গিয়েছে, রমজান তার বন্ধুদের সাথে রাস্তার ধারে বসেছিল। হঠাৎ কয়েকজন দুষ্কৃতী এসে তাকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। রমজানের গলার নীচে গুলি লাগে বলে জানা গিয়েছে। ইতিমধ্যেই ঘটনাস্থলে গিয়ে পৌঁছছে জগদ্দল থানার পুলিশ এবং ব্যারাকপুরের পুলিশ কমিশনার অজয় ঠাকুর। তবে ওই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হয়নি।

 

এই বিষয়ে ভাটপাড়া পুরসভার উপপুরপ্রধান দেবজ্যোতি ঘোষ জানিয়েছেন, “যদিও এলাকাটি আমার এলাকার মধ্যে পড়ে না। এটি জগদ্দল বিধানসভার মধ্যে পড়ে। তবে যেকোন মৃত্যুই বেদনাদায়ক। যেটুকু খবর পেয়েছি, এর সঙ্গে রাজনীতির কোনও যোগ নেই। প্রশাসন ব্যবস্থা নিচ্ছে। কীভাবে ঘটনাটি ঘটল, তা তদন্ত না করে বলতে পারবে না প্রশাসন। তবে এই ঘটনা খুবই দুর্ভাগ্যজনক। আমি প্রশাসনের কাছে আবেদন রাখব, যেন আততায়ীকে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সনাক্ত করে উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করেন।”

 উল্লেখ্য, দিনকয়েক আগেই ব্যারাকপুরের সদ্য প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার মনোজ ভার্মা জানিয়েছিলেন, ব্যারাকপুরের বিভিন্ন এলাকা থেকে ২০০-র বেশি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। কিন্তু এরই মধ্যে আবার গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু হল এক যুবকের। কাজেই শিল্পাঞ্চলের রাজনৈতিক মহলে বিরোধী শিবিরের মত ফের একবার পুলিশের  ভুমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করল।

Google news