Ram Mandir: রামমন্দিরের প্রভাব কি বাজেটেও দেখা যাবে, নির্মলা কি অযোধ্যার বাক্স খুলবেন?

অযোধ্যায় ‘রামমন্দির'(Ram Mandir) পবিত্র করার প্রস্তুতি প্রায় শেষ। এর পরপরই পেশ হতে যাচ্ছে দেশের সাধারণ বাজেট, যা এবারের একটি অন্তর্বর্তীকালীন বাজেট হবে। কিন্তু নির্বাচনের ঠিক আগে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামনের পার্স থেকে কি অযোধ্যার জন্য নতুন কিছু উপহার হতে চলেছে?

National News Desk:   বর্তমানে উত্তরপ্রদেশের অযোধ্যায় ‘রামমন্দির’ উদ্বোধনের অপেক্ষায় গোটা দেশ। আগামী ২২ জানুয়ারি মন্দিরে রাম লালার মূর্তি বিসর্জনের প্রস্তুতি শেষ পর্যায়ে। ২২ জানুয়ারির প্রায় এক সপ্তাহ পরে, দেশের ফোকাস মোদী সরকারের এই মেয়াদের চূড়ান্ত বাজেটের দিকে থাকবে, যা নির্বাচনের ঠিক আগে আসবে। তারপরে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন দেশে অন্তর্বর্তীকালীন বাজেট পেশ করবেন,কিন্তু ‘রামমন্দির ‘(Ram Mandir) -এর প্রভাব কি তাতে দেখা যাবে ? নির্মলা সীতারামনের পার্স থেকে কি অযোধ্যার জন্য অনেক উপহার আসবে?

‘রাম মন্দির'(Ram Mandir) নির্মাণের পর প্রায় সাড়ে তিন লাখ জনসংখ্যার অযোধ্যায় পর্যটকের সংখ্যা ১০ লাখে পৌঁছবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে, অযোধ্যা সম্ভবত বিশ্বের বৃহত্তম শহর আধুনিকীকরণ পর্বের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। যেখানে রাম মন্দির নির্মাণ ছাড়াও আড়াইশোর বেশি প্রকল্পের কাজ চলছে। এমন পরিস্থিতিতে নির্মলা সীতারমনও বাজেটে অযোধ্যাকে   আলাদা কিছু উপহার দিতে পারেন।

নির্মলার অযোধ্যা উপহার

‘অন্তবর্তীকালীন বাজেটে’ সরকার নতুন বড় ঘোষণা না করলেও গত কয়েকটি অন্তর্বর্তী বাজেটে এই ঐতিহ্য ভেঙেছে। এমন পরিস্থিতিতে নির্মলা সীতারামনের কাছে এমন অনেক সুযোগ রয়েছে যেখানে তিনি বাজেটে অযোধ্যাকে(Ram Mandir) অনেক কিছু দিতে পারেন। রেল বাজেট এখন বাজেটের অংশ, এমন পরিস্থিতিতে অযোধ্যায় নতুন ট্রেন উপহার দিতে পারেন নির্মলা সীতারামন। এছাড়াও দেশের তীর্থস্থানগুলির উন্নয়নের জন্য মোদি সরকার ‘হৃদয় যোজনা’ চালু করেছে। একই সময়ে, মোদি সরকারের ‘অমৃত স্কিম’ শহরগুলির পুনর্নবীকরণের জন্যও কাজ করে। এই পরিস্থিতিতে, নির্মলা এই দুটি প্রকল্পের মাধ্যমে অযোধ্যার জন্য বড় ঘোষণা করার সুযোগ পাবেন।

এসব প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে

বাজেট ছাড়া, অযোধ্যা (Ram Mandir) কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের বেশ কিছু প্রকল্পের  আশীর্বাদ পেয়েছে। এর আগে, অযোধ্যায় ‘মরিয়াদা পুরুষোত্তম শ্রী রাম আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর’ নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছিল, যা এখন রেকর্ড সময়ে শেষ হয়েছে।

তবে এখন এর নাম পরিবর্তন করে রাখা হয়েছে ‘মহার্ষ বাল্মীকি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর’। নির্বাচনে বাল্মীকি সম্প্রদায়ের ভোট পেয়ে সম্ভবত বিজেপি এতে লাভবান হবে। অযোধ্যা বিমানবন্দর থেকে ইন্ডিগো এবং এয়ার ইন্ডিয়া পরিষেবা শুরু হয়েছে। বাকি সংস্থাগুলি শীঘ্রই অযোধ্যার জন্য তাদের পরিষেবা চালু করতে চলেছে। অন্যদিকে অযোধ্যার রেলস্টেশনটি সরকার পুনর্নির্মাণ করেছে। যেখান থেকে বন্দে ভারত ও অমৃত ভারত ট্রেনের পরিষেবা শুরু হয়েছে। ২০৩১ সালের মধ্যে অযোধ্যায় ৮৫,০০০ কোটি টাকার প্রকল্পগুলি সম্পূর্ণ করার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে, যার মধ্যে অযোধ্যার সৌন্দর্যায়ন, রাস্তা প্রশস্তকরণ, থিম পার্ক এবং অন্যান্য প্রকল্প রয়েছে।






Google news