Ram Mandir: জন্মভূমির মন্দির চত্বর পরিক্রমা করলেন রামলালার রৌপ্য মূর্তি, আজ বসবে স্থাবর প্রতিমা!

গর্ভগৃহের দোরগোড়ায় রামলালা।

রামসেবক পুরমে অবস্থিত যোগ কেন্দ্র বিবেক সৃষ্টি কমপ্লেক্স থেকে রামলালার স্থাবর মূর্তি রামজন্মভূমি মন্দির (Ram Mandir) চত্বরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার আসনে বসার পর শুরু হবে পূজা।

National News Desk:   রামলালার অভিষেকের দ্বিতীয় দিনে রাম মন্দির(Ram Mandir) চত্বরে রামলালার রৌপ্য মূর্তি নিয়ে যাওয়া হয়। এর আগে রাম জন্মভূমি কমপ্লেক্সে রাম লালার স্থাবর মূর্তি পরিদর্শনের পরিকল্পনা ছিল, কিন্তু প্রতিমার ভারী ওজন এবং নিরাপত্তার কারণে এই পরিকল্পনা বাতিল করা হয়। রামলালার ছোট রৌপ্য প্রতিমা দিয়ে মন্দির চত্বর পরিক্রমা  অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। গভীর সন্ধ্যায়, রামসেবক পুরমে অবস্থিত যোগ কেন্দ্র বিবেক সৃষ্টি কমপ্লেক্স থেকে রামলালার স্থাবর মূর্তি রামজন্মভূমি মন্দির (Ram Mandir) চত্বরে নিয়ে যাওয়া হয়। আজ আসনে বসার পর শুরু হবে পূজা। বুধবার বিকেলে, প্রধান হোস্ট ডাঃ অনিল মিশ্র ১০ কেজি ওজনের রূপার তৈরি রামলালার মূর্তি একটি পালকিতে নিয়ে মন্দিরের ভিতরে এবং চারপাশে ঘুরে দেখেন। এ সময় মন্দির প্রাঙ্গণ বৈদিক মন্ত্র উচ্চারণে মুখরিত হয়ে ওঠে। মন্দির নির্মাণে নিয়োজিত আচার্য, প্রকৌশলী ও নিরাপত্তাকর্মীরাও মূর্তির ওপর ফুল বর্ষণ করেন। একই সঙ্গে রাম জন্মভূমি প্রাসাদ (মন্দির চত্বর) জমকালো সাজসজ্জাও করা হয়েছে।  এর আগে, ভিএইচপি পৃষ্ঠপোষক পর্ষদের সদস্য দীনেশ চন্দ্র এবং প্রধান হোস্ট ডাঃ অনিল মিশ্রও রামলালার রৌপ্য মূর্তির পুজো করেন। প্রথম দিন দুপুর আড়াইটায় নির্মেহী আখড়ার মহন্ত দিনেন্দ্র দাস ও পুরোহিত সুনীল দাস গর্ভগৃহে পূজা করেন।

বুধবার গভীর রাতে কড়া নিরাপত্তার মধ্যে বিবেক সৃষ্টি কমপ্লেক্স থেকে রামলালার স্থাবর মূর্তি রাম জন্মভূমি মন্দির চত্বরে নিয়ে যাওয়া হয়। বন্ধ ট্রাকে বসা স্থাবর প্রতিমা নিয়ে যাওয়া হয়। এই সময়কালে দুই শতাধিক পিএসি কর্মী, এটিএস দল এবং অন্যান্য পুলিশ আধিকারিক নিরাপত্তায় নিয়োজিত ছিলেন। বিবেক সৃষ্টি থেকে স্থাবর প্রতিমাটি ১১ ক্রসিং থেকে ধরমপথ, লতা চক, মেইন রোড হয়ে ক্যাম্পাসে নিয়ে যাওয়া হয়। যেখানে কড়া নিরাপত্তায় স্থাবর প্রতিমা রাখা হবে। স্থাবর মূর্তি সোনার সিংহাসনে অধিষ্ঠিত হবে। গর্ভগৃহে সিংহাসন প্রস্তুত।

দুপুর ১টা ২০ মিনিটে কলশ পূজা অনুষ্ঠিত হয়

কলশ পূজার মধ্য দিয়ে রামলালার জীবনাদর্শের দ্বিতীয় দিন শুরু হয়। শুভ সময়ে, কালাশ পূজা শুরু হয় দুপুর ১টা ২০ মিনিটে সরুর তীরে। প্রধান হোস্ট ডাঃ অনিল মিশ্র একটি সংকল্প গ্রহণ করেন এবং কালাশ পূজা করেন। এই সময়ে মোট দশটি কলশের পূজা করা হয়। পূজার পর ২১টি মাতৃশক্তি জল কলস যাত্রা বের করে। রাম জন্মভূমি কমপ্লেক্সে নির্মিত যজ্ঞমণ্ডপে মূল কলশ স্থাপন করা হয়েছে। যেখানে রামলালার নবনির্মিত গর্ভগৃহে শ্রী রাম যন্ত্র স্থাপনের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে প্রাণপ্রতিষ্ঠার আনুষ্ঠানিকতা। সাত আচার্য রীতি অনুযায়ী তীর্থ পূজা, কালাশ পূজা ও বর্ধিনী পূজা করেন।

কলশ পূজা কেন হয় ?

আচার্য সুনীল লক্ষ্মীকান্ত দীক্ষিত বলেন, কালশ যাত্রার আগে যে পূজা করা হয় তাকে কালাশ পূজা বলে। সরুর তীরে নয়টি বর্ধিনী অর্থাৎ নয়টি কলস সরুর জলে ভরে পূজা করা হত। একটি প্রধান কলাশও পূজা করা হয়েছিল, যার আচার অনুষ্ঠানটি হোস্ট দ্বারা সঞ্চালিত হয়েছিল। নয়টি মাতৃশক্তিও জড়িত ছিল নয়টি কলশের পূজায়, সবাই কলশের পূজা করত। পূজার সময় সার্যুসহ দেশের সব পবিত্র নদী ও সাগরকে আবাহন করা হয়।

Google news