Delhi Liquor Case: চন্দ্রচূড়কে ১৫০ আইনজীবীর চিঠি, কেজরির জামিনের বিষয়ে দিল্লি হাইকোর্টের বিচারকের ভূমিকায় প্রশ্ন

দিল্লির প্রায় ১৫০ জন আইনজীবী দেশের প্রধান বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়কে চিঠি লিখে আবগারি শুল্ক নীতি মামলায় (Delhi Liquor Case) দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের নিয়মিত জামিনে দিল্লি হাইকোর্টের স্থগিতাদেশের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। ৪ জুলাই অর্থাৎ বৃহস্পতিবার লেখা এই চিঠিতে আদেশ পাস করার ক্ষেত্রে ‘স্বার্থের দ্বন্দ্ব’-এর কথা উল্লেখ করেছেন। আইনজীবীরা লিখেছেন, ‘দিল্লি হাইকোর্ট এবং দিল্লির জেলা আদালতে কিছু নজিরবিহীন আচরণের বিষয়ে আমরা আইনি গোষ্ঠীর পক্ষ থেকে এই চিঠি লিখছি।’

আইনজীবীদের বক্তব্য, দিল্লি হাইকোর্টের বিচারপতি (Delhi Liquor Case) সুধীর কুমার জৈনের এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের (ইডি) আবেদনের শুনানি থেকে নিজেকে সরিয়ে নেওয়া উচিত ছিল। আইনজীবীরা বলেন, এই মামলায় ইডির প্রতিনিধিত্বকারী আইনজীবী বিচারকের ভাই ছিলেন এবং তাই স্বার্থের দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। আইনজীবীরা দাবি করেছেন যে বিচারপতি সুধীর কুমার জৈনের ভাই অনুরাগ জৈন ইডির আইনজীবী ছিলেন এবং এই আপাত স্বার্থের দ্বন্দ্ব কখনই ঘোষণা করা হয়নি। তবে সূত্রগুলি জানিয়েছে যে আইনজীবী অনুরাগ জৈন আবগারি নীতির বিষয় সম্পর্কিত কোনও অর্থ পাচারের মামলা পরিচালনা করছেন না। পিটিশনে ১৫৭ জন আইনজীবী স্বাক্ষর করেন।

আদালতের ছুটির সময় বিচারাধীন মামলাগুলিতে চূড়ান্ত আদেশ না দিতে অধস্তন আদালতের অবকাশকালীন বিচারকদের নির্দেশ দিয়ে একজন জেলা বিচারকের কথিত অভ্যন্তরীণ চিঠির বিষয়েও আইনজীবীরা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। আইনজীবীরা বলেছেন যে এই ধরনের আদেশ নজিরবিহীন। চিঠিতে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের জামিনের বিষয়টি উত্থাপন করে বলা হয়েছে, বিচারপতিরা ইডি ও সিবিআই মামলায় জামিন চূড়ান্ত করছেন না এবং দীর্ঘ স্থগিতাদেশের অনুমতি দিচ্ছেন।

রাউজ অ্যাভিনিউ কোর্টের অবকাশকালীন বিচারক বিচারপতি বিন্দুর ২০শে জুন অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে জামিন মঞ্জুর করার আদেশের প্রেক্ষাপটে এই উপস্থাপনাটি তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। ইডি-র জামিনের আর্জি খারিজ করে দিল্লি হাইকোর্ট। অতিরিক্ত দায়রা জজ বিচারপতি বিন্দু দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীকে (Delhi Liquor Case) জামিন দেওয়ার সময় প্রধান বিচারপতির বক্তব্যের কথা উল্লেখ করে বলেন, অধস্তন আদালতগুলিকে দ্রুত এবং সাহসী সিদ্ধান্ত নিতে হবে যাতে হাইকোর্ট মামলা মোকদ্দমার বোঝা হয়ে না পড়ে।

Google news