ED in Action: শিল্পা শেঠি-রাজ কুন্দ্রার ৯৭ কোটির সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করল ইডি

বলিউড অভিনেত্রী শিল্পা শেঠি ও তার স্বামী রাজ কুন্দ্রার বিরুদ্ধে বড় ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছে ইডি (ED in Action)। ইডি অর্থাৎ এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের মুম্বাই শাখা পিএমএলএ আইনের অধীনে চলচ্চিত্র অভিনেত্রী শিল্পা শেঠি এবং তার স্বামী রাজ কুন্দ্রার ৯৭.৭৯ কোটি টাকার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করেছে। ইডি সূত্রে জানা গিয়েছে, বাজেয়াপ্ত করা সম্পত্তির মধ্যে রয়েছে জুহুতে অবস্থিত একটি বাংলো যা শিল্পা শেঠির নামে রয়েছে। এছাড়াও পুনেতে একটি বাংলোও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এছাড়া রাজ কুন্দ্রার নামে কিছু শেয়ারও বাজেয়াপ্ত করেছে ইডি।

আসলে, তদন্তকারী সংস্থা ইডি মহারাষ্ট্রে নথিভুক্ত বিভিন্ন এফআইআরের ভিত্তিতে পিএমএলএ আইনের অধীনে তদন্ত শুরু করেছিল। অভিযোগ ছিল যে মেসার্স ভ্যারিয়েবল টেক প্রাইভেট লিমিটেড, প্রয়াত অমিত ভরদ্বাজ, অজয় ​​ভরদ্বাজ, বিবেক ভরদ্বাজ, সিম্পি ভরদ্বাজ, মহেন্দ্র ভরদ্বাজ এবং অন্যান্য এমএলএম এজেন্টরা মিথ্যা প্রতিশ্রুতির ভিত্তিতে বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে প্রায় ৬৬০০ কোটি টাকার বিটকয়েন পেয়েছেন। বছর ২০১৭, যা পুনরুদ্ধার করা হয়েছিল ১০ শতাংশ রিটার্ন নিশ্চিত করা হয়েছিল। এবং বিটকয়েন মাইনিংয়ে ব্যক্তিগত স্বার্থে সেগুলো ব্যবহার করত। এটা ছিল এক ধরনের পঞ্জি স্কিম।

ইডি অভিযোগ করেছে যে শিল্পা শেঠির স্বামী রাজ কুন্দ্রা এই কেলেঙ্কারির মাস্টারমাইন্ডের কাছ থেকে ২৮৫ বিটকয়েন পেয়েছিলেন। অমিত ভরদ্বাজ বিনিয়োগকারীদের প্রতারণা করে এই বিটকয়েনগুলি পেয়েছিলেন এবং ইউক্রেনে বিটকয়েন খনির বিনিয়োগ করেছিলেন। রাজ কুন্দ্রা এই কেলেঙ্কারীর অপরাধের আয় থেকে ২৮৫ বিটকয়েন পেয়েছিলেন, যার মূল্য আজ পর্যন্ত ১৫০ কোটি টাকারও বেশি। এই ঘটনায় ইডি অভিযান চালিয়ে তিন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে।

উল্লেখ্য, গত বছর সিম্পি ভরদ্বাজকে ১৭ ডিসেম্বর ২০২৩, নিতিন গৌর ২৯ ডিসেম্বর ২০২৩ এবং অখিল মহাজন ১৬ জানুয়ারী ২০২৩-এ গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। তারা সবাই এখন কারাগারে। এই মামলার প্রধান অভিযুক্ত অজয় ​​ভরদ্বাজ এবং মহেন্দ্র ভরদ্বাজ এখনও পলাতক, যাদের খোঁজ চলছে তদন্তকারী সংস্থা ইডি। এই ঘটনায় ইতিমধ্যেই এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট ৬৯ কোটি টাকার স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করেছে।

Google news